Chittagong Tribune

Neutral coverage and incisive analysis.

সিলেটে গৃহবধুর রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার, স্বামী পলাতক

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ছবিঃ সংগৃহীত

সিলেটের কানাইঘাট লক্ষীপ্রসাদ পশ্চিম ইউপির কালিনগর আগফৌদ গ্রামে স্বামীর হাতে খুন হয়েছেন ফাতেমা বেগম নামে এক গৃহবধূ। বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) রাতে এ হত্যাকাণ্ডটি ঘটে।

জানা যায়, কালীনগর আগফৌদ গ্রামের আব্দুল খালিকের মেয়ে ফাতেমা বেগমের সাথে একই গ্রামের জালাল উদ্দিনের ছেলে ট্র্যাক্টর চালক মহরম আলীর বিয়ে হয় বছর খানেক আগে। বিয়ের পর থেকে শ্বশুরবাড়িতে আলাদা একটি পাকা ঘরে স্ত্রীকে নিয়ে বসবাস করত মহরম আলী।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, কালীনগর আগফৌদ গ্রামের আব্দুল খালিকের মেয়ে ফাতেমা বেগমের সাথে একই গ্রামের জালাল উদ্দিনের ছেলে মহরম আলীর বিয়ে হয় বছর খানেক আগে। বিয়ের পর থেকে শ্বশুর বাড়িতে আলাদা একটি পাকা ঘরে স্ত্রীকে নিয়ে বসবাস করতেন মহরম আলী।

ফাতেমা বেগমের মা জলিকা বেগমও বলেন, ‘আমার মেয়ের সাথে ওর স্বামীর ঝগড়া সব-সময় লেগেই থাকতো। বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে তারা ঘুমিয়ে যান। পরদিন শুক্রবার সকাল বেলা মহরম আলীর বাড়ির কয়েকজন মহিলা আমার বাড়িতে এসে বলেন, আমার মেয়ে ফাতেমা নাকি অসুস্থ। একপর্যায়ে তাদের বসতঘরের দরজায় এসে ডাকাডাকি করলে আমার মেয়ে ফাতেমা ও তার স্বামীর কোনো শব্দ না পেয়ে দরজায় ধাক্কা দিলে দরজা খুলে যায় এবং ঘরের মেঝেতে আমার মেয়ের রক্তাক্ত লাশ দেখতে পাই, কিন্তু তার স্বামীকে ঘরে দেখা যায়নি।’

স্ত্রী খুন হওয়ার পর থেকে পলাতক রয়েছে মহরম আলী। এ হত্যাকাণ্ডের সাথে ফাতেমা বেগমের স্বামী মহরম আলী ছাড়াও আরও কেউ জড়িত রয়েছে কিনা এবং কি কারণে ফাতেমাকে হত্যা করা হয়েছে তা তদন্ত করে বের করা হবে ওসি জানান।

এদিকে, বিকাল ২টার দিকে ফাতেমা হত্যা কাণ্ডের আলামত সংগ্রহ করার জন্য পুলিশের অধিকতর অপরাধ (সিআইডি) ক্রাইম সিন ইউনিটের সিলেটের একটি দল ঘটনাস্থলে এসে ফাতেমার লাশের প্রাথমিক সুরতহাল রির্পোট তৈরি সহ বেশ কিছু আলামত জব্দ করেন। ক্রাইম সিন দলের পাশাপাশি থানা পুলিশও পৃথক সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে তার লাশ উদ্ধার করে সিলেট ওমেক হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে।

কানাইঘাট থানার ওসি শামসুদ্দোহা জানান, ‘একটি পাকা ঘরের মেঝেতে ফাতেমা বেগমের মৃতদেহ পাওয়া যায় এবং মেঝেতে জমাট বাধা রক্তের দাগ ও ঘরের বিছানাসহ আসবাবপত্র এলোমেলোভাবে পাওয়া যায়। ফাতেমা বেগমের ডান চোখের নিচে এবং বাম চোখের পাশে এবং গলায় নখের আচঁড়সহ আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তার মুখ ও কান দিয়ে রক্ত বের হয়েছিল। ধারনা করা হচ্ছে ফাতেমা বেগমকে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করা হয়েছে। তবে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পর কিভাবে তাকে হত্যা করা হয়েছে তার প্রকৃত কারণ জানা যাবে।’


Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
বাংলা » English